দুর্দান্ত জয় পেল বাংলাদেশ।

51

কালের সমাচার ডেস্ক।

সৌম্য, তামিমের পর হাফসেঞ্চুরি উদযাপন করলেন সাকিব আল হাসান।

তিন ফিফটিতে ৮ উইকেটে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে জিতে বাংলাদেশ শুভ সূচনা করেছে ত্রিদেশীয় সিরিজের। তাদের ৪৫ ওভারে ২ উইকেটে ২৬৪ রান।

সাকিবের ক্যারিবিয়ানদের বিপক্ষে দেশের মাটিতে দ্বিতীয় ওয়ানডেতেও হাফসেঞ্চুরি ছিল।

এর আগেই বাংলাদেশ সৌম্য ও তামিমের প্রায় দেড়শ ছোঁয়া জুটিতে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নেয়। কিন্তু আক্ষেপ হয়ে থাকলো তাদের সেঞ্চুরি করতে না পারাটা।

সৌম্য ৭৩ আর তামিম ৮০ রান করে সাজঘরে ফিরে গেছেন।

সৌম্য ৬৩ রানে শেন ডাউরিচের হাতে জীবন পান। কিন্তু তিন অঙ্কের ঘরে যেতে ব্যর্থ হন। সৌম্য চেয়েছিলেন রোস্টন চেসের বলটি বাউন্ডারি ছাড়া করতে।

কিন্তু ডিপ মিড উইকেটে দাঁড়ানো ব্রাভো অসাধারণ এক ক্যাচ ধরেন। তাতে ৯ চার ও এক ছয়ে সৌম্যর ৬৮ বলের ইনিংস শেষ হয়।

১৪৪ রানের উদ্বোধনী জুটিতে কিছুটা আগ্রাসী ছিলেন সৌম্য তবে রক্ষণাত্মক ছিলেন তামিম। তিনি প্রথম বাউন্ডারির দেখা পান দশম ওভারে।

তারপর অভিজ্ঞ এই ব্যাটসম্যান খেলে গেছেন স্বরূপে। হাফসেঞ্চুরির দেখা পান ৭৮ বলে। তার সবশেষ সেঞ্চুরি ছিল গত বছরের জুলাইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে।

ডাবলিনে তামিম থেমেছেন ৮০ রানে। শ্যানন গ্যাব্রিয়েলের নিচু বলে ফ্লিক করতে গিয়ে তিনি জেসন হোল্ডারের ক্যাচ হন।

তার ১১৬ বলের ইনিংসে ছিল ৭টি চার। সাকিবের সঙ্গে তার ছিল ৫২ রানের জুটি। ওয়েস্ট ইন্ডিজ এর আগে ৯ উইকেটে করে ২৬১ রান।

মঙ্গলবার টানা দ্বিতীয় ম্যাচে সেঞ্চুরি পেয়েছেন হোপ (১০৯)।

মাশরাফি মুর্তজা (৩/৪৯), মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন (২/৪৭), সাকিব আল হাসান (১/৩৩) ও মেহেদী হাসান মিরাজের (১/৩৮) নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে বেশিদূর যেতে পারেনি ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশের সব বোলারের প্রস্তুতিটা হয়েছে দারুণ ২ উইকেট নিতে ৮৪ রান খরচ করা মোস্তাফিজুর রহমান বাদে।

ক্যারিবিয়ানদের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ স্কোরার চেস করেছেন ৫১ রান। এছাড়া সুনিল অ্যামব্রিস ৩৮ ও অ্যাশলে নার্স করেন ১৯ রান।

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.