‘ঈগল গ্রুপের’ হামলা

22

কালের সমাচার ডেস্ক।

কুমিল্লায় ক্রমে ভয়ঙ্কর হয়ে উঠা কিশোর গ্যাং গ্রুপ ‘ঈগলের’ হামলায় আরো এক শিক্ষার্থীর প্রাণ গেছে।

নিহত আজনাইন আদিল (১৭) এ বছরই কুমিল্লা মডার্ন হাই স্কুল থেকে এসএসসি পাশ করা।

সোমবার দিবাগত রাত ৯টার দিকে নগরীর মোগলটুলী এলাকার কর্ণফুলী পেপার হাউজের সামনে ছুরিকাঘাতে আহত হওয়ার পর আদিল কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মারা যায়।

কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলার মহিচাইল এলাকার আব্দুস সাত্তারের একমাত্র ছেলে নিহত আদিল।

জানা গেছে কুমিল্লা মহানগরীর ঝাউতলা এলাকার রেজা মঞ্জিলে ভাড়ায় বসবাস করে তার পরিবার।

কোতয়ালী থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) মো. সালাহ উদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, কিশোরটি মারা গেছে।

বর্তমানে কুমেক হাসপাতালে তার লাশ রয়েছে।

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী নগরীর ঝাউতলার আক্তার হোসেনের ছেলে সাইদুল ইসলাম জানান, তাকে রাত সাড়ে ৮টার দিকে আহত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখি।

সেখান থেকে প্রথমে কুমিল্লা সদর হাসপাতালে ও পরে কুমিল্লা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে তাকে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

ধারণা করা হচ্ছে, নগরীতে বেপরোয়া হয়ে উঠা ‘ঈগল’ গ্রুপের কিশোররা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে।

তবে জানা যায়নি কি কারণে এ হত্যাকাণ্ড সংগঠিত হয়েছে।

গত ২১ এপ্রিল রাতে কুমিল্লা মডার্ন স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্র মোন্তাহিম ইসলাম মিরন ‘তুই’ সম্বোধন নিয়ে সংঘর্ষের জেরে সহপাঠীদের ছুরিকাঘাতে নিহত হয়।

মহানগরীর দক্ষিণ দুর্গাপুরের বিষ্ণুপুর এলাকার সিঙ্গাপুর প্রবাসী আবুল কালাম আজাদের ছেলে মিরন।

পুলিশ হত্যায় অংশ নেওয়া তিন কিশোরকে অভিযান চালিয়ে আটক করে।

ভয়ঙ্কর সব তথ্য বেরিয়ে আসে তাদের দেওয়া জবানবন্দি থেকে।

নগরীর বিভিন্ন এলাকায় গড়ে উঠা অন্তত ১০টি গ্যাং গ্রুপের নাম ওঠে আসে।

এরপর থেকে ‘ঈগল’-‘র‌্যাগ’ সহ ভয়ঙ্কর হয়ে উঠা কিশোর গ্যাং গ্রুপগুলোর নাম নগরজুড়ে আলোচনায় আসে।

জেলা ও পুলিশ প্রশাসন সাঁড়াশি অভিযানে নামে।

একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশ ও গোয়েন্দা পুলিশ অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন গ্যাং গ্রুপের অন্তত ৩০ জনকে গ্রেপ্তার করে এবং অন্তত সাত শ আধুনিক ছোরা ও চাপাতি শহরের এসবি প্লাজার তিনটি দোকান থেকে উদ্ধার করে।

আটককৃত ৩০ জন কুমিল্লা শহরের বিভিন্ন স্কুলের ছাত্র। তাদের বেশির ভাগ ৭ম ও ৮ম শ্রেণির ছাত্র।

অভিভাবকদের অবহিত করে, মুচলেকা নিয়ে আটককৃতদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.