এক কাপ চা/কফি হতে পারে ভালবাসার মুহূর্তে শ্রেষ্ঠ।

প্রকাশঃ ১৮ই আগস্ট,২০১৮

598

আজকে খাবার টেবিলে বসে বাবাকে জিজ্ঞেস করলাম যে উনি মা কে নিয়ে ডেটিং এ কোথায় যেতেন?
উত্তর এ বললেন, উনাদের নাকি অত খরচ করার টাকা ছিল না, টি.এস.সি এর চা কফি খেয়েই দিন কাটাতো!
.
মজার বিষয় হল এখন ও কিন্তু অনেক কপোত কপোতীরা তাই ই করে, চা কফি খেতেই যায়,
শুধু ভিন্ন জায়গায়!
.
তাহলে চা কফির সাথে প্রেমের কী কোন সম্পর্ক আছে নাকি?
চলুন দেখা যাক,
.
কফির প্রধান উপাদান হল ক্যাফেইন যা অবসাদগ্রস্ত মস্তিষ্ক কে চাঙ্গা রাখে আর কর্ম উদ্দীপনা দেয়। তাই এটা মতভেদে ২য় বা ৩য় সবচেয়ে বহুল প্রচলিত পানীয়।
.
ক্যাফেইন এর এ ব্যবহার কে না জানে?
প্রচলিত কাজটি ছাড়াও ক্যাফেইন দেহে অ্যাড্রেনালিন এর ক্ষরন বাড়িয়ে দেয়!
তার ফলে শরীরে রক্ত সঞ্চালন বেড়ে যায়, হৃদস্পন্দন বেড়ে যায়, শ্বাসপ্রশাস স্বাভাবিক এর চেয়ে বেড়ে যায় খানিকটা, আর দৃষ্টিশক্তি কিছুটা স্পষ্ট হয় কেননা পিউপিল এর প্রসারন ঘটে!
.
তাহলে প্রথমদিন কফিশপে,
তাকে নীল শাড়ি তে দেখে যে হৃদস্পন্দন বেড়ে গেল সেটা আসলে তার প্রভাব ছিল নাকি ক্যাফেইন এর?
.
ক্যাফেইন আরও একটি কাজ হল এটি মস্তিষ্কে ডোপামিন এর পুনঃশোষনে বাধা দেয়।
.
তাহলে কি হয়? এই তো প্রশ্ন?
.
ডোপামিন কে বলা হয় Feel Happy হরমোন।
আমরা খুশি হলে শরীরে ডোপামিন নিঃসরন বাড়ে বা ডোপামিন বাড়লে আমাদের আনন্দ অনুভূত হয়!
.
তাহলে ভালবাসার সাথে এর সম্পর্ক টা কোথায়?
.
ভাললাগা/ভালবাসা ও দেহে এর অনেক রাসায়নিক বিক্রিয়ার একটি, যেখানে ডোপামিন এর মাত্রা বাড়ে, (সাথে ছেলেদের ক্ষেত্রে বাড়ে ভাসোপ্রেসিন আর মেয়েদের ক্ষেত্রে বাড়ে অক্সিটোসিন।)
যার জন্য পছন্দের মানুষটাকে দেখামাত্রই মনে খুশির বন্যা বয়ে যায়!
.
মনোবিজ্ঞান এর ভাষায়,
মানুষের মস্তিষ্ক খানিকটা এমন যে, যখন আমরা কোন কিছু অনুভব করি, তাকে আমরা চারপাশের অবস্থার সাথে মিলিয়ে ব্যাখা করতে পছন্দ করি।
তা সত্য হোক আর না হোক!
.
এবং অনেক প্রবৃত্তির একটা হল যখন মানুষ এমন ভালবাসার মত অনুভূতির স্বীকার হয়, সে সব অনুভূতিকে সে তার আশেপাশের বিপরীত লিঙ্গের উপস্থিতি অনুপস্থিতির সাথে মিলিয়ে ব্যাখা দিয়ে আনন্দ পায়!
.
আর কফি তো সে ক্ষেত্রে আরও নতুন মাত্রা যোগ করে।
.
So was that the magic of his white shirt that caught your attention,
or her smile which almost forced your heart to skip a beat ?
Or just the caffeine in your coffee!!
.
থাক সব রহস্য এর ব্যাখা বিজ্ঞান না করুক।

স্নেহা সারওয়ার, কালের সমাচার ডেস্ক।

Leave A Reply

Your email address will not be published.